অলৌকিক গল্প অবলম্বনে গুরু নানক সম্বন্ধে আলােচনা করো

প্রশ্ন:-

 ‘অলৌকিক’ গল্প অবলম্বনে গুরু নানক সম্বন্ধে আলােচনা করো।

1×5=5

উত্তর:-

→ কর্তার সিং দুগগাল রচিত ‘অলৌকিক’ গল্পটিতে শিখ ধর্মমতের প্রবর্তক গুরু নানকের জীবনের একটি খণ্ডচিত্র ধরা পড়েছে। হাসান আব্দালের জঙ্গলে প্রচণ্ড গরমে গুরু নানক তাঁর অনুচরবর্গ – সহ যাত্রা করেছিলেন। পথে তাঁর অন্যতম অনুচর মর্দানা তৃয়ায় কাতর হয়ে পড়েছিল। গুরু নানক তাকে অনেক বুঝিয়ে অপেক্ষা করার জন্য অনুরােধ করেন। এ থেকে তাঁর স্নেহবাৎসল্যের পরিচয় মেলে। মর্দানার একগুঁয়েমিতে তিনি রুষ্ট হননি, তার প্রতি কঠিন হননি। শিষ্যের প্রতি গভীর মমতা তাঁর আচরণে ধরা পড়েছে। বলী কান্ধারী যখন মর্দানাকে জল না দিয়ে অপমান করে তাড়িয়ে দেন, তখনও গুরু নানক মর্দানাকে পুনরায় নম্রভাবে বলীর কাছে পাঠিয়েছেন এবং তার কাছে নিজেকে ‘নানক দরবেশের অনুচর’ হিসেবে পরিচয় দিতে বলেছেন। এ থেকে গুরু নানকের সহনশীল ব্যক্তিত্বের পরিচয় পাই। শেষপর্যন্ত মর্দানার তৃষ্না নিবারণের জন্য তিনি পাথর সরিয়ে ঝরনার সৃষ্টি করেছেন, কিন্তু তবুও প্রথমেই অলৌকিক ক্ষমতার পরিচয় দেননি বরং নিজ ক্ষমতাকে আড়াল করেছেন। বলীর নিক্ষিপ্ত পাথরটি হাতের ছোঁয়ায় থামিয়েছেন তিনি, কিন্তু বলীকে কোনাে শাস্তি দেননি; যা তাঁর অহিংস, উদার, সৌম্য ও ক্ষমতাশীল মনের পরিচায়ক।


Leave a Comment