হাে – চি – মিনের নেতৃত্বে ভিয়েতনামের মুক্তিযুদ্ধের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ দাও।। উচ্চমাধ্যমিক ইতিহাস 2021 বড় প্রশ্ন সাজেশন

ভূমিকা→ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পরবর্তীকালে পৃথিবীর ইতিহাসে সাম্রাজ্যবাদী শক্তির আস্ফালনের এক করুন ও গুরুত্বপূর্ণ চিত্র ছিল ভিয়েতনামের যুদ্ধ। এটি একটি ক্ষুদ্র দেশ তার জাতীয় মর্যাদা রক্ষার জন্য স্বদেশপ্রেমের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের মতো এক মহা শক্তিধর দেশকে কিভাবে নাস্তানাবদ করে পরাজিত করেছিল তা পৃথিবীর ইতিহাসে চিরস্মরণীয়।

পূর্বকথা→ চীনের দক্ষিনে অবস্থিত ভিয়েতনামে ফরাসিরা ঊনবিংশ শতাব্দীতে অধিকারী স্থাপন করে। দীর্ঘ ৭০ বছর সাম্রাজ্যবাদী কার্যকলাপ চালায়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ফ্রান্সের দূর্বলতার সুযোগ নিয়ে জাপান ভিয়েতনাম দখল করে। জাতীয়তাবাদী ভিয়েতনামের অধিবাসীরা জাতীয়তাবাদী সমাজতন্ত্রী হো-চি-মিনের নেতৃত্বে জাপানের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা সংগ্রাম চালাতে থাকে। ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দে জাপান ভিয়েতনাম ছেড়ে চলে গেলে ভিয়েতনামিরা হো-চি-মিনের নেতৃত্বে বিভিন্ন অঞ্চলে স্বাধীন গণ প্রজাতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করে।

ফরাসিদের পুনরায় ভিয়েতনাম দখল→ ১৯৪৫ খ্রিস্টাব্দে পটাশডাম সম্মেলনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যুদ্ধ শেষে ফরাসিরা পুনরায় দক্ষিণ ভিয়েতনামের উপর নিজেদের কতৃত্ব স্থাপন করে।

ভিয়েতনাম মুক্তিযুদ্ধে প্রথম পর্ব→  

ফরাসিরা কেবলমাত্র দক্ষিণ ভিয়েতনামে কৃতিত্ব নেই খুশি ছিল না। তারা সমগ্র ভিয়েতনামের উপর আধিপত্য স্থাপন করতে চেয়েছিল। এর ফলে ভিয়েতনামীদের সঙ্গে ফরাসিদের ১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে যুদ্ধ শুধু হয়। বাধ্য হয়ে ওই বছরই ফরাসিরা ভিয়েতনামের সঙ্গে এক চুক্তি স্বাক্ষর করে এবং হো-চি-মিনের সরকারকে স্বীকৃতি দেবে বলে। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যে ওই চুক্তি ভেঙে বাও-দায় কে রাজা হিসেবে ঘোষণা করে। এবং হাই-য়ং বন্দরে ফরাসিরা বোমাবর্ষণ করে ইংল্যান্ডে আমেরিকায় এই চক্রান্তের অংশ নিয়েছিল।

(১) দিয়েন-ফু- ঘটনা→  ভিয়েতনামীদের সঙ্গে ফরাসি বাহিনী তীব্র যুদ্ধ শুরু হয় এবং তা ৮ বছর ধরে চলতে থাকে। মার্কিন সাহায্য পাওয়া সত্ত্বেও ফ্রান্স পিছু হতে থাকে। এই অবস্থায় ফরাসি সেনাপতি নেভারে উত্তর ভিয়েতনামের দিয়েন-বিয়েন-ফু গ্রামে একটি দুর্ভেদ্য ঘাটি নির্মাণ করেন। ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে ১৩ মার্চ ভিয়েতনামিরা ওই ঘাটি আক্রমণ করলে পুনরায় যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। ৭ মে ফরাসি সেনাপতি নেভারে ভিয়েতনাম সেনাপতি জেনারেল গিয়াপের কাছে আত্মসমর্পণ করে। এই ঘটনা দিয়েন-বিয়েন-ফু নামে পরিচিত।

(২) জেনেভা সম্মেলন→ ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে ২০ জুলাই এক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এই চুক্তি অনুযায়ী স্থির হয় যে। (ক) ১৭ ডিগ্রী অক্ষরেখা বরাবর ভিয়েতনামকে উত্তর ও দক্ষিণ দুই ভাগে ভাগ করা হয়। (খ) উত্তর ভিয়েতনামে হো-চি-মিনের কমিউনিস্ট এবং দক্ষিণ ভিয়েতনামে ফরাসি মদতপুষ্ট সম্রাট বাও-দায়ের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে। (গ) ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে জুলাই মাসে জাতিপুঞ্জের তদারকিতে ঐক্যবদ্ধ ভিয়েতনামে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ভিয়েতনাম মুক্তিযুদ্ধে দ্বিতীয় পর্ব→

 জেনেভা চুক্তি কে অগ্রাহ্য করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যেভাবে হোক ভিয়েতনামে নির্বাচন বন্ধ করতে উদ্যোগী হয়। ১৯৫৫ খ্রিস্টাব্দে মার্কিন মদদপুষ্ট নো-দিন-দিয়েমকে রাজা পদে বসায় এবং মার্কিন প্রচনায় দক্ষিণ ভিয়েতনাম সরকার নির্বাচন না হওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

(১) ভিয়েত-কং→ দিয়েম সরকার ছিল স্বৈরাচারী ও দুর্নীতিগ্রস্ত এবং দিয়েম সরকার নির্বাচন না হওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলে সমগ্র দক্ষিণ ভিয়েতনামে প্রবল বিক্ষোভ সংঘটিত হয়। ১৯৬০  খ্রিস্টাব্দে ২০ ডিসেম্বর সেখানে জাতীয় মুক্তি ফ্রন্ট গঠন করে দিয়েম সরকারের সঙ্গে সংগ্রাম শুরু করেন। দিয়েম এদেরকে ভিয়েত-কং বলে আখ্যা দেন।

(২) দিয়েম-সরকারের পতন→ ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দে ভিয়েতনামের সৈন্য ও মার্কিন বিমান বাহিনী যৌথভাবে ভিয়েত-কং এর বিরুদ্ধে আক্রমণ করতে থাকে। ফলে দিয়েম সরকারের বিরুদ্ধে গণআন্দোলন প্রবল হয় এবং সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটে ১৯৬৩ খ্রিস্টাব্দে নভেম্বর মাসে। ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে জেনারেল নগুয়েন-ভ্যান-থিউ দক্ষিণ ভিয়েতনামে ভাগ্য নিয়ন্ত্রকে পরিনত হয়।

(৩) মার্কিন আক্রমণ→  ১৯৬৫ খ্রিস্টাব্দে থেকে মার্কিন হস্তক্ষেপ প্রত্যক্ষ রূপ লাভ করে। চার বছরের মধ্যেই ভিয়েতনামে মার্কিন সেনা চার গুণ বৃদ্ধি পায়। মার্কিন বাহিনী ভিয়েত-কং এর বিরুদ্ধে আক্রমণ করলেও ভিয়েত-কং গেরিলাযুদ্ধের প্রতিরোধ করা তাদের পক্ষে সম্ভব ছিলনা।

(৪) স্বাধীন ও ঐক্যবদ্ধ ভিয়েতনাম→  ১৯৭৩ খ্রিস্টাব্দে ২৩ জানুয়ারি প্যারিসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ বিরোধী চুক্তি করতে বাধ্য হয়। ভিয়েতনাম থেকে সমস্ত মার্কিন সেনা ও বিমান বাহিনী প্রত্যাহার করা হয়ম কিন্তু দক্ষিণ ভিয়েতনামে সামরিক শাসক ও ভিয়েত-কং দের মধ্যে সংঘর্ষ চলতে থাকে। ১৯৭৫ খ্রিস্টাব্দে দক্ষিণ ভিয়েতনামে সকল অংশ জাতীয় মুক্তি ফ্রন্টের দখলে এলে এই বছর এপ্রিলে জেনারেল ভ্যান-থিউ জাতীয় মুক্তি ফ্রন্টের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। ১৯৭৬ খ্রিস্টাব্দের দুই ভিয়েতনাম ঐক্যবদ্ধ হয়ে জন্ম নেয় সোশালিস্ট রিপাব্লিক অব ভিয়েতনা। যার রাষ্ট্রপতি ফাম-ভ্যান-দং।

Leave a Comment