দ্বাদশ শ্রেণীর দর্শন বচন【2022】 বাক্যকে বচনে রূপান্তরিত করার নিয়ম | বচন শেখার সহজ নিয়ম ও উপায়

  1) যদি কোন বাক্যে ‘সকল’, ‘সব’, ‘সমস্ত’, ‘প্রত্যেক’, ‘যে কোনো’, ‘যে কেহ‘ প্রভৃতি এই জাতীয় শব্দের কোন একটি থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তবে সেই বাক্য টিকে ‘A’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। আর যদি বাক্যটি নঙর্থক হয় তবে সেই বাক্যটিকে ‘O’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। 

যেমন->  ১ বাক্য: সব পাখি আকাশে ওড়ে।

   আদর্শ আকার:(A) সকল পাখি হয় এমন যারা উড়তে পারে।

                 ২ বাক্য: সব ধাতু মূল্যবান নয়।

    আদর্শ আকার:(O) কোনো কোনো ধাতু নয় মূল্যবান।

2) যদি কোন বাক্যে ‘সর্বদা‘, ‘সর্বত্রই‘, ‘সবসময়’, ‘অবশ্যই’, ‘নিশ্চয়ই’, ‘নিশ্চিত ভাবে’,’অনিবার্য ভাবে’ প্রভৃতি এই জাতীয় শব্দের কোন একটি থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তবে সেই বাক্য টিকে ‘A’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। আর যদি বাক্যটি নঙর্থক হয় তবে সেই বাক্যটিকে ‘O’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। 

যেমন->  ১ বাক্য: কুসংস্কার সর্বদায় বর্জনীয়।

   আদর্শ আকার:(A) সকল কুসংস্কার হয় বর্জনীয়।

               2 বাক্য: রাজনীতি বিদরা সবসময় সত্য কথা বলেন না।

   আদর্শ আকার:(O) কোন কোন রাজনীতিবিদ নয় সত্যবাদী।

3) যদি কোন বাক্যে ‘কোনো…নয়’, ‘কেউ… নয়‘, ‘কোনো মতেই… নয়’, ‘কোনটি… নয়’, ‘একটিও না’, ‘কদাপি নয়’,’কোনো দিনও নয়’,’নেয়’,’নয়’,হতে পারে না’- প্রভৃতি এই জাতীয় শব্দের কোন একটি থাকে তাহালে সেগুলি (E) বচন হবে। 

যেমন->  ১ বাক্য: মানুষ কখনো পূর্ণ নয়।

   আদর্শ আকার:(E) কোনো মানুষ নয় পূর্ণ।

               2 বাক্য: সাদা হাতি নেই।

   আদর্শ আকার:(E) কোনো হাতি নয় সাদা প্রাণি।

4) যদি কোন বাক্যে ‘কয়েকটি’, ‘কিছুকিছু‘, ‘অনেক’, ‘কম সংখ্যক’, ‘বহু’, ‘প্রায় সব’,’খুব কম নয়’,’সাধারণত’,’প্রায়’,সম্ভবত’,’কখনো কখনো’,’%’,’অধিকাংশ’,’শতকরা’,’একটি ছাড়া সব’,’সচরাচর’,’অনেক সময়’,’মুষ্টি মেয়’-প্রভৃতি এই জাতীয় শব্দের কোন একটি থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তবে সেই বাক্য টিকে ‘I’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। আর যদি বাক্যটি নঙর্থক হয় তবে সেই বাক্যটিকে ‘O’ বচনে রূপান্তর করতে হবে।

যেমন->  ১ বাক্য: অধিকাংশ শিশুই চঞ্চল।

   আদর্শ আকার:(I) কোন কোন শিশু হয় চঞ্চল।

               2 বাক্য: শিক্ষিত ব্যক্তিরা সাধারণত প্রতারক হয়না

   আদর্শ আকার:(O) কোন কোন শিক্ষিত ব্যাক্তি নয় প্রতারক।

5) যদি কোন বাক্যে ‘কদাচিৎ‘, ‘কিঞ্চিৎ‘, ‘খুব কম’, ‘নেই বল্লেই হয়’, ‘খুব কম সংখ্যক’, ‘বিরল’-প্রভৃতি এই জাতীয় শব্দের কোন একটি থাকে এবং বাক্যটি যদি সদর্থক হয় তবে সেই বাক্য টিকে ‘O’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। আর যদি বাক্যটি নঙর্থক হয় তবে সেই বাক্যটিকে ‘I’ বচনে রূপান্তর করতে হবে। 

যেমন->  ১ বাক্য: শিক্ষকরা কদাচিৎ আধুনিক মনস্ক।

   আদর্শ আকার:(O) কোনো কোনো শিক্ষক নয় আধুনিক মনস্ক।

               2 বাক্য: খুব কম শিশুই চঞ্চল নয়।

   আদর্শ আকার:(I) কোনো কোনো শিশু হয় চঞ্চল।

6/ক) যদি কোন বাক্যে ‘কেবল মাত্র‘, ‘এক মাত্র‘, ‘শুধু মাত্র’, ‘শুধু কেবল’, ‘শুধু’, ‘কেবল’,’ব্যাতিত কেহ নয়’,’ছাড়া কেও নয়’,’-প্রভৃতি লক্ষণগুলি যদি কোন বাক্যের প্রথমে থাকে তাহলে সেগুলির ক্ষেত্রে-
*বাক্যের উদ্দেশ্য পদ বচনে বিধেয় পদ হবে।
*বাক্যের বিধেয় পদ বচনে উদ্দেশ্য পদ হবে।
*বাক্যটি কে ‘A’ বচনে প্রকাশ করতে হবে।

যেমন->  ১ বাক্য: কেবল মাত্র সাধুরাই সৎ।

   আদর্শ আকার:(A) সকল সৎ ব্যাক্তি হয় সাধু।

6/খ) কিন্তু ‘কেবল মাত্র‘, ‘এক মাত্র‘, ‘শুধু মাত্র’, ‘শুধু কেবল’, ‘শুধু’, ‘কেবল’,’ব্যাতিত কেহ নয়’,’ছাড়া কেও নয়’,’-প্রভৃতি লক্ষণগুলি যদি কোন বাক্যের বিধেয় পদের আগে বসে অর্থাৎ বাক্যের মাঝখানে থাকে তাহলে সেগুলির ক্ষেত্রে-
*বাক্যের উদ্দেশ্য পদ,বিধেয় পদ বচনে স্থান পরিবর্তন করবে না ।
*বাক্যটি কে ‘A’ বচনে প্রকাশ করতে হবে।

যেমন->  ১ বাক্য: ছাত্ররা কেবল জীবনমুখী গান ভালোবাসে।

   আদর্শ আকার:(A) সকল ছাত্র হয় এমন তারা জীবনমুখী গান ভালোবসে।

7) যদি কোন বাক্যে ‘কেবল মাত্র‘, ‘এক মাত্র‘, ‘শুধু মাত্র’, ‘শুধু কেবল’, ‘শুধু’, ‘কেবল’, এবং তার সঙ্গে ‘নয়’ চিহ্ন থাকে তাহলে বাক্যটিকে (A,E) দুটি বচনের সংযোগ হিসাবে প্রকাশ করতে হবে।

যেমন->  ১ বাক্য: একমাত্র শিশুরা অন্যের মনে আঘাত করে না।

   আদর্শ আকার:(A) সকল অ-শিশু হয় এমন যারা অন্যের মনে আঘাত করে।

আদর্শ আকার:(E) কোন শিশু নয় এমন যারা অন্যের মনে আঘাত করে।



8) যদি কোন বাক্যে ‘ব্যাতীত‘, ‘ছাড়া‘, ‘বাদে’, -প্রভৃতি কোন ব্যাতিক্রম মূলক শব্দ থাকে এবং যদি নির্দিষ্ট করে বলা হয় তাহলে বচন টি হবে (A) এবং ব্যাতিক্রম মূলক শব্দটি বন্ধনীতে উল্লেখ করতে হয়। আর ব্যাতিক্রম যদি অনির্দিষ্ট হয় তাহলে বচন টি (I)বচন হবে।

যেমন->  ১ বাক্য: পারদ ছাড়া সব ধাতু মূল্যবান।

   আদর্শ আকার:(A) সকল ধাতু (পারদ ছাড়া) হয় মূল্যবান।

               2 বাক্য: একজন ছাড়া সবাই উপস্থিত আছে।

   আদর্শ আকার:(I) কোন কোন ব্যাক্তি হয় উপস্থিত।

গুন অনুসারে বচন দুই প্রকার 
 i) সদর্থক (A, I)
ii) নঞর্থক(E,O)
পরিমান অনুসারে বচন দুই প্রকার
i)সার্বিক বা সামান্য (A,E)
ii)বিশেষ (I,O)

গুন ও পরিমান অনুসারে বচন চার প্রকার
i)সামান্য সদর্থক বচন(A)
ii)সামান্য নঞর্থক বচন(E)
iii)বিশেষ সদর্থক বচন(I)
iv)বিশেষ নঞর্থক বচন(O)

A বচনের পরিমানক ->সকল  সংযোজক->হয়
বচনের পরিমানক -> কোনো  সংযোজক->নয়
বচনের পরিমানক ->কোনো কোনো সংযোজক->হয়
বচনের পরিমানক ->কোনো কোনো সংযোজক->নয়

1 thought on “দ্বাদশ শ্রেণীর দর্শন বচন【2022】 বাক্যকে বচনে রূপান্তরিত করার নিয়ম | বচন শেখার সহজ নিয়ম ও উপায়”

Leave a Comment