ভারতের সংসদ

ভারতীয় সংসদ

 সংসদ ভারতের সর্বোচ্চ যুক্তরাষ্ট্রীয় আইনবিভ্রান্ত । নয়াদিল্লির সংসদ মার্গের সংসদ ভবনে এটি অবস্থিত । সংস্কৃত সংসদ ( অর্থাৎ , সদ্য বা পরিষদ ) থেকে এই নামটি গৃহীত হয়েছে । কোনও বিল আইনে পরিণত করতে সংসদের উভয় কক্ষে তা পাস হয়ে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক অনুমােদিত হতে হয় । ভবনের সেন্ট্রাল হলটি সংসদের যৌথ অধিবেশনের জন্য ব্যবহৃত হয় । লােকসভা নামক নিম্নকক্ষ ও রাজ্যসনামক উচ্চকক্ষ নিয়ে ভারতের সংসদ গঠিত ।

 লােকসভা [ Lower House ] 

ভারতীয় আইনসভা দুটি কক্ষে বিভক্ত— লােকসভা ও রাজ্যসভা । লােকসভার অনধিক ৫৫২ [ ৫৩০ + ২৩ + ২ ] জন সদস্য । ৫৩০ জনসদস‍্য ২৯ টি রাজ্যের জনগণের ভােটে প্রত্যক্ষভাবে নির্বাচিত হয়ে আসেন । কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে ২০ জন নির্বাচিত হন এবং ২ জন অ্যাংলাে ইন্ডিয়ানকে রাষ্ট্রপতি মনােনীত করেন । লােকসভার কার্যকালের মেয়াদ পাঁচ বছর । প্রাপ্তবয়স্ক ভােটাধিকারের ভিত্তিতে প্রতি পাঁচ বছরের মেয়াদে লােকসভা গঠিত হয় । মেয়াদ পূর্তির আগে সরকারের পতন হলে অন্তবর্তী নির্বাচনের প্রয়ােজন হয় । বর্তমান লোকসভার সদস্য সংখ্যা ৫৪৫ । লােকসভা দেশের সর্বোচ্চ আইন প্রণয়নকারী সংস্থা । লােকসভায় সভাপতিত্ব করেন স্পিকার বা ধ্যক্ষ । লােকসভায় নির্দিষ্ট সংখ্যক সদস্য উপস্থিত না হলে বা কোরাম [ Quoram ] না হলে স্পিকার সাময়িক কালের জন্য লােকসভার অধিবেশন মুলতুবি করতে পারেন । দলমত নির্বিশেষে স্পিকার নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করে থাকেন ।

 লােকসভার গঠন

 ( ১ ) লোকসস্থার সদস্যগণ ১৮ বছর বা তার বেশি বয়সের প্রাপ্ত বয়স্কদের ভােটে ও বন্ধুত্রের জন্য নির্বাচিত হন ।

 ( ২ ) বর্তমানে লােকসভার মােট সদস্য সংখ্যা ৫৪৫ জন । এর মধ্যে ৩০ জন সদস্য ভারতের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে এবং ১৩ জন সদস্য ভারতের কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলি থেকে জনসাধারণের প্রত্যক্ষ ভােটে সরাসরি ভাবে নির্বাচিত হন । কেবলমাত্র ২ জন অ্যাংলাে ইন্ডিয়ান সদস্যকে রাষ্ট্রপতি মনােনীত করেন ।

 ( ৩ ) ২৫ বছর বয়সি যেকোনাে ভারতীয় নাগরিক লােকসভার সদস্য হতে পারেন ।

 ( ৪ ) সাধারণ নির্বাচনের পর নতুন লােকসভার প্রথম অধিবেশনে সদস্যরা একজন স্পিকার ও একজন ডেপুটি স্পিকার নির্বাচন করেন এবং এই সন্ত্র স্থায়িত্বকাল পর্যন্ত তাঁরা সাম্রান্ত কাজ পরিচালনা করেন । লােকসভার সদস্যরা ৫ বছরের জন্য নির্বাচি হলেও বিশেষ পরিস্থিতিতে ( যেমন- লােকসভায় অনাস্থা প্রস্তাব গৃহীত হলে ) রাষ্ট্রপতি প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শে ৫ বছরের আগেই লােকসভা ভেঙে দিতে পারেন ।

 লােকসড়ার কার্যাবলী 

( ১ ) যেকোনাে বিল বা আইন – ঘটিত প্ৰস্কাৰ লােকসভায় ও রাজ্যসভায় অনুমােদন করাতে হয় ।

 ( ২ ) অর্থসংক্রান্ত বিল কেবলমাত্র লােকসভাতেই উত্থাপন ও পাশ করাতে হয় ৷

 ( ৩ ) সংসদে গৃহীত বিল আইনে পরিণত করতে হলে রাষ্ট্রপতির লিখিত সম্মতির প্রয়ােজন হয় । রাষ্ট্রপতি ইচ্ছা করলে অর্থবিল ছাড়া অন্যানা বিল পূনর্বিবেচনার জন্য আবার সংসদে ফেরত পাঠাতে পারেন , কিন্তু অর্থবিল একবার লােকসভায় পাশ হলে রাষ্ট্রপতি তা পুনর্বিবেচনার জন্য আর সংসদে ফেরত পাঠাতে পারেন না ।

রাজ্যসভা

 রাজ্যসভা ভারতীয় আইন সভার উচ্চ কক্ষ । এটি একটি স্থায়ী প্রতিষ্ঠান । নির্দিষ্ট সময় অন্তর লােকসভার অবলুপ্তি ও পুনর্নির্বাচন ঘটে । কিন্তু রাজ্যসভা ভেঙে দেওয়া যায় না। এর সদস্য সংখ্যা ২৫০ জন । এঁদের মধ্যে শিল্প , সাহিত্য , বিজ্ঞান ও সমাজসেবার ক্ষেত্র থেকে ১২ জন জ্ঞানীগুনী সদস্যকে রাষ্ট্রপতি মনােনীত করেন । এঁরা মনােনীত সদস্য নামে পরিচিত । রাজ্যসভার সদস্যদের কার্যকালের মেয়াদ ছয় বছর হলেও প্রতি দু – বছর অন্তর এক তৃতীয়াংশ সদস্য অবসর গ্রহণ করেন । নির্বাচনের মাধ্যমে শূন্যপদ পূরণ করা হয় । প্রাদেশিক আইনসভার সদস্যগণের ভােটে রাজ্যসভার সদস্যগণ নির্বাচিত হন । ভারতের উপ – রাষ্ট্রপতি পদাধিকারবলে রাজ্যসভার সভাপতিত্ব করেন । তাঁর অনুপস্থিতিতে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান সভার দৈনন্দিন কাজ পরিচালনা করেন । ডেপুটি চেয়ারম্যান রাজ্যসভার সদস্যদের মধ্যে থেকে নির্বাচিত হন । বর্তমানে রাজ্যসভার সদস্য সংখ্যা ২৪৫। সরবরাহ – সংক্রান্ত বিষয় ছাড়া অন্য সব বিষয়ে রাজ্যসভা লােকসভার সমান মর্যাদা ভােগ করে । সরবরাহ সংক্রান্ত বিষয়ে লােকসভার ক্ষমতা রাজ্যসভার চেয়ে বেশি । কোনাে বিষয় নিয়ে দুই কক্ষের মধ্যে মতবিরােধ দেখা দিলে সংসদের দুই কক্ষের যৌথ অধিবেশনের মাধ্যমে তা সমাধান করা হয় । তবে লােকসভার আকার রাজ্যসভার প্রায় দ্বিগুণ হওয়ায় , যৌথ অধিবেশনে লােকসভাৱই শক্তি বেশি থাকে । আজ পর্যন্ত সংসদে মাত্র তিনটি যৌথ অধিবেশন বসেছে । ২০০২ সালে সন্ত্রাসবিরােধী আইন পােটা পাস করানাের জন্য শেষ যৌথ অধিবেশনটি বসেছিল ।

Leave a Comment